ত্রিপুরা

অযত্নের শিকার মনোরম পিকনিক স্পট , তারপরও বনভোজন প্রেমীদের আনাগোনা অন্তহীন।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক,ত্রিপুরা ; অযত্নের শিকার মনোরম পিকনিক স্পট , তারপরও বনভোজন প্রেমীদের আনাগোনা অন্তহীন। এমনই এক মনোরম পিকনিক স্থল দীর্ঘদিন থেকে অযত্নের শিকার হয়ে আসছে। যা আজ ২০২১ সালের প্রথম দুদিনে আশা কিছু সংখ্যক বনভোজন প্রেমীদের মনে রেখাপাত করেছে। পূর্বে ভ্রমণকারী ব্যক্তিগণ শোকাহত হয়েছেন এই মনোরঞ্জন স্থলের করুণ দশা দেখে। দীর্ঘ প্রায় ৪০ বৎসর পূর্বে সরকারি অর্থেই নির্মিত হয়েছিল উত্তর ত্রিপুরা জেলার পানিসাগর মহকুমার অন্তর্গত ধর্মটিলা ফরেস্ট রেঞ্জ অফিস এর আওতাধীন রাবার বাগানের মধ্যস্থলের এক সময়ের স্বনামধন্য ” ধর্মটিলা পিকনিক স্পট”। যার চারিপাশে ছিল জলাশয়,, জলে ফুটত অসংখ্য পদ্মফুল,,মাঝখানে স্থল জায়গাতে ছিল পাহাড়ি ছন বাঁশের তৈরি খোলা বসার স্থল । প্রতি ইংরেজি বছরের শেষ ও প্রথম মাসে অতি মনোরম দৃশ্য দেখা যেত “ধর্মটিলা পিকনিক স্পট ” এ। কালক্রমে ভ্রমণকারীদের সুবিধার্থে সরকারি অনুদানেই তৈরি হয়েছিল পাকা রান্নার ঘর এবং পানীয় জলের সুব্যবস্থা জন্য রিং অয়েল। যা এই ধর্মতলা পিকনিক স্পটে আশা বনভোজনপ্রেমীদেরকে সুবিধা প্রদান করতে স্থাপিত হয়েছিল। সেই পানীয় জলের একমাত্র উৎস এই রিং ওয়েলটি পিকনিক করতে আসা অধিকাংশ অসাধু ব্যাক্তিরা ডাস্টবিনে তৈরি করে দিয়েছে। যা দেখে সাধারণভাবেই বুঝা যায় যে বর্তমান সভ্য সমাজের কিছু সংখ্যক অসাধু মানুষ প্রতি ইংরেজি বৎসরের শেষ ও প্রথম মাসে বনাঞ্চলে এসে ভোজন করতে ভালোবাসেন ঠিকই। কিন্তু বনকে নয়। বনের সৌন্দর্যকেও নয়। এমনকি গভীর জঙ্গলে পানীয় জলের উৎস কেউ নয়। তাই অতি দুঃখ সহকারে কবির ভাষায় বলতে হয়, হায়রে সমাজের মানুষ সভ্য হয়েছ তুমি!!!আজকের এই দৃশ্য দেখে তার মধ্যেও কিছু সংখ্যক শুভবুদ্ধি সম্পন্ন বনভোজন প্রেমীরা আশা করেন যে প্রশাসনিকভাবে বনে ভ্রমণ ও বনভোজন করার বিধিনিষেধ গুলি যথাযথভাবে প্রয়োগ করে রাজ্যের বনাঞ্চল এবং উত্তর ত্রিপুরা জেলার এই ঐতিহ্যবাহী “ধর্মটিলা পিকনিক স্পটটি, অতিসত্বর সযত্নে রক্ষা করার উদ্যোগ গ্রহণ করেন।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

5 × 5 =

Back to top button