ত্রিপুরা

কৃষি বিলের বিরুদ্ধে যারা কথা বলছেন তাদের স্বার্থে আঘাত লেগেছে : নবেন্দু ভট্টাচার্য।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক,ত্রিপুরা : দিল্লিতে কৃষকদের আন্দোলন। সেখান থেকেই ধর্মঘটের ঘোষণা। এই ধর্মঘটের আঁচ ত্রিপুরা রাজ্যে ও লক্ষ্য করা যাচ্ছে। শাসকদল বিজেপি সাংগঠনিক অবস্থান থেকে ধর্মঘটের বিপক্ষে থেকে কৃষক স্বার্থে কথা বলছে। আগরতলা কৃষ্ণনগরস্থিত ত্রিপুরা প্রদেশ বিজেপি কার্যালয়ে আহুত এক সাংবাদিক সম্মেলনে কথা বলতে গিয়ে ত্রিপুরা প্রদেশ বিজেপি মুখপাত্র নবেন্দু ভট্টাচার্য বলেন, কৃষি বিলের বিরুদ্ধে যারা কথা বলছেন তাদের স্বার্থে আঘাত লেগেছে। কৃষি বিজ্ঞানী স্বামীনাথন যে পরামর্শ দিয়েছেন সেই পরামর্শকে পাথেয় করে বর্তমান সরকার কৃষি নীতি প্রণয়ন করেছে। কৃষি বিল আইনে পরিণত হওয়ার পর যারা বিরোধিতা করছে তারা এতদিন কৃষকদের পুঁজি করে রাজনীতি করেছে। রাজ্যের ক্ষেত্রে বামফ্রন্ট সরকার কৃষক দরদি বলছে। অথচ এই বামফ্রন্ট সরকারের টানা ২৫ বছরে সহায়কমূল্যে ধান কিনতে পারিনি কৃষকদের কাছ থেকে। বিপ্লব কুমার দেব পরিচালিত বর্তমান বিজেপি সরকার সহায়কমূল্যে কৃষকদের কাছ থেকে ধান কিনেছে। বিজেপি ধর্মঘটের বিপক্ষে। কিন্তু যারা ধর্মঘটের সমর্থন করছে তাদের মোকাবিলা করতে ময়দানে থাকছে ৮ ডিসেম্বর। গোটা রাজ্যে বিজেপির যুব মোর্চা এবং মহিলা মোর্চা ময়দানে থেকে সহায়ক ভূমিকা পালন করছে আজ সকাল থেকেই। কংগ্রেসের তরফে আগরতলা পোস্টঅফিস চৌমিহুনীস্থিত ত্রিপুরা প্রদেশ কংগ্রেস ভবনে এক সাংবাদিক সম্মেলন করে প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি পীযূষ কান্তি বিশ্বাস বলেন, কৃষকরা অন্নদাতা তাদের বাঁচাতে হবে। তাদের না বাঁচাতে পারলে দেশ বাঁচবে না। যে কৃষি বিল পাশ করানো হয়েছে সেটা কর্পোরেট শিল্পপতিদের স্বার্থে। কংগ্রেস দল এর বিরোধিতা করছে। তারা ধর্মঘটকে পূর্ণ সমর্থন জানিয়েছে। এদিকে বিজেপির অভ্যন্তরীণ ঘটনাবলির নিরিখে যারা কংগ্রেসের সংস্কৃতি বলে প্রচার করছে তার তীব্র বিরোধিতা করেন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি পীযূষ কান্তি বিশ্বাস।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

18 + 17 =

Back to top button