ত্রিপুরা

এখন ত্রিপুরার মানুষ বুঝতে পারছেন অন্য দলের সঙ্গে ভারতীয় জনতা পার্টির কী পার্থক্য : বিপ্লব কুমার দেব।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক,ত্রিপুরা : আগরতলা শকুন্তলা রোডে ভারতীয় জনতা পার্টির বড়দোয়ালি মণ্ডল কার্যালয়ের শুভ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ করেন ত্রিপুরা রাজ্যের মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন ত্রিপুরা প্রদেশ বিজেপি ড:মানিক সাহা, ত্রিপুরা প্রদেশ বিজিপি সভানেত্রী শ্রীমতি পাপিয়া দত্ত সহ ত্রিপুরা প্রদেশ বিজেপি দলের অন্যান্য কার্যকর্তাগন।এদিন মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব বলেন যে, এখন ত্রিপুরার মানুষ বুঝতে পারছেন অন্য দলের সঙ্গে ভারতীয় জনতা পার্টির কী পার্থক্য। আগে সরকার, প্রশাসন, ডিজিটালাইজেশন এই বিষয়গুলির সঙ্গেই রাজ্যের মানুষ পরিচিত ছিলেন না। কিন্তু এখন তা দেখতে পাচ্ছেন। আগে ছিল ক্যাডার ভিত্তিক পার্টিতন্ত্র। আগে সাধারণ মানুষের মধ্যে ধারণা ছিল মহাকরণে গেলে, সরকারি অফিসে গেলে কাজ হবে না। যা হত সব পার্টি অফিস থেকে। এখানকার মানুষ আগে পার্টি অনুভব করতেন। সরকার নয়। বিধায়ক, সাংসদদের কোনও গুরুত্ব ছিল না। সব ক্ষমতা ছিল ডিসিএম, এলসিএমদের হাতে। কিন্তু নতুন বিজেপি সরকার আসার পর তা বদলে গেছে।এই রাজ্যের গ্রামে-শহরে সর্বত্র আগে ক্যাডাররা নজরবন্দি করে রাখত সাধারণ মানুষকে। স্বাধীন ভাবে মানুষ চলাফেরা করতে পারতেন না। কিন্তু এখন সেই পরিস্থিতি থেকে মানুষ মুক্তি পেয়েছেন।সব দিক থেকে অগ্রসর হচ্ছে ত্রিপুরা। শিক্ষা, স্বাস্থ্য, কর্মসংস্থান, পরিকাঠামো উন্নয়ন, শিল্প-বাণিজ্য সার্বিক অগ্রগতির মাধ্যমেই আত্মনির্ভরতার পথে এগোচ্ছে রাজ্য। কৃষিতে সারা দেশের মধ্যে ত্রিপুরা তিন নম্বরে উঠে এসেছে। উত্তর-পূর্বের রাজ্যগুলির মধ্যে প্রথম। ১১ হাজার ৩০০ কোটি টাকা খরচে ন্যাশনাল হাইওয়ে তৈরি হচ্ছে রাজ্যে। যা বিগত সরকার জন্মেও ভাবতেও পারবে না। লাইটহাউস নির্মাণ, আগরতলায় ফ্ল্যাট তৈরি থেকে ট্রেড লাইসেন্স প্রদান সব দিকে বিকাশের কাজ জারি রেখেছে ত্রিপুরা রাজ্য সরকার।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

14 − twelve =

Back to top button