ত্রিপুরা

ত্রিপুরা রাজ্যে মহিলা বাউল শিল্পীর শ্লীলতাহানীর ঘটনায় ধৃত চার।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক,ত্রিপুরা :- ত্রিপুরা রাজ্যের জনপ্রিয় এক বাউল গানের মহিলা শিল্পী দুর্গাপুজোয় একটি অনুষ্ঠান করার জন্য বাড়ি থেকে বের হয়েছিলেন। অনুষ্ঠান শেষে ওই বাউল শিল্পী তার এক বন্ধুর সাথে আমতলী থানার সীমান্তবর্তী নিশ্চিন্তপুর এলাকায় দূর্গা পূজার একটি প্যান্ডেলের কাছাকাছি দাঁড়াতেই তাকে লক্ষ্য করে একদল যুবক দৌড়ে আসে।।তখনো রাত ৯ টা বাজে। শিল্পীর সঙ্গে থাকা ছেলে বন্ধুটি তাদের ভাব দেখে ঘাবড়ে যেতেই যুবকদের সাহস বেড়ে যায়। সঙ্গে সঙ্গেই শিল্পীকে জাপটে ধরে যুবকদের মধ্যে একজন এবং পুরোদস্তর ভাবেই হেনস্থা করতে শুরু করে। শিল্পীর ঘাবড়ে যাওটাকে যুবকরা উপভোগ করতে শুরু করে। যতই তিনি বিভিন্ন কথা বলে তাদের কাছ থেকে মুক্তি পাবার চেষ্টা করছিলেন ততই তার অসহায়ত্ব উপভোগ করছিল যুবকরা। যুবকরা তাদেরকে মদ খাওয়ার জন্য ১০০০০ টাকা দিতে বলেন। তাহলে যুবকরা বাউল কন্যা শিল্পীকে ছেড়ে দেবে। অসভ্য অশ্লীল বাক্য বাউল কন্যা শিল্পীকে যুবকরা বলতে থাকে। পুজোর প্যান্ডেলের পাশে দাঁড়িয়েছিলো পুলিশ।। কিন্তু কারোর চোখে পড়েনি এই দৃশ্য। ওই বাউল শিল্পী এবং তার বন্ধুকে আটকে রেখে মোবাইলে ভিডিও ফুটেজ তোলা হয়। বলা হয় টাকা না দিলে ওইসব ভিডিও ফুটেজ সোশ্যাল মিডিয়াতে ভাইরাল করে দেওয়া হবে। এ ব্যাপারে আক্রান্ত ঐ বাউল শিল্পীর তরফে রাতেই আমতলী থানাতে বিষয়টি জানানো হয়। পরে আমতলী থানার পুলিশ ওই বাউল শিল্পীর শ্লীলতাহানীর একটি মামলা হাতে নিয়ে তদন্ত শুরু করে চারজনকে গ্রেপ্তার করতে সক্ষম হয়েছে। ধৃত যুবকরা হলো, সঞ্জিত বর্মন, বাড়ী অশ্বিনী মার্কেট এলাকায়, অসীম মজুমদার,অরিজিৎ বিশ্বাস বাড়ি অশ্বিনী মার্কেট এলাকায় এবং উৎপল দে, বাড়ি যোগেন্দ্রনগর বিদ্যাসাগর পল্লী এলাকায়। মহিলা বাউল শিল্পীর শ্লীলতাহানীর ঘটনায় ধৃত আসামি চারজনের বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধি অনুসারে মামলা দায়ের করেন পুলিশ। ১৮ সূর্যমনিনগর মন্ডলের বিজেপি মহিলা মোর্চার কর্মীরা অশ্বিনী মার্কেট বাউল শিল্পী কন্যার বাড়িতে গিয়ে সেই মেয়েটির সাথে দেখা করেন এবং আগরতলা আমতলী থানায় এসে দোষীদের কঠোর থেকে কঠোরতম শাস্তির দাবি জানান থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত ওসি সিদ্ধার্থ শংকর করের কাছে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button