রাজ্য

আগামীকাল থেকে যুব মোর্চা বৃহত্তর আন্দোলনে নামবে: সৌমিত্র খাঁন।

নিউস বেঙ্গল 365, নিউসডেস্ক: বাগনানের বিজেপি নেতা কিঙ্কর মাঝিকে হত্যার প্রতিবাদে বাগনান বনধ শুরুর পর থেকে উত্তপ্ত গোটা এলাকা। বিজেপির মিছিল শুরু হওয়ার পর পাল্টা মিছিল শুরু করে তৃণমূল। তারমধ্যেই বাগনানে পৌঁছে যান যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি তথা সাংসদ সৌমিত্র খাঁন। উল্লেখ্য, অষ্টমীর রাতে হাওড়ার বাগনানে বাড়ির সামনেই কিঙ্কর মাঝির ওপর গুলি চালায় দুষ্কৃতীরা। আশঙ্কাজনক অবস্থায় তাঁকে প্রথমে একটি স্থানীয় হাসপাতালে, পরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় এনআরএস হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। বুধবার কিঙ্কর মাঝির মৃত্যু হয়। তাঁর মৃত্যুর খবর বাগনানে পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। অভিযুক্তের বাড়িতে ভাঙচুর করে আগুন লাগিয়ে দেয় উত্তেজিত জনতা। মুম্বই রোড অবরোধ করে দফায় দফায় বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন স্থানীয় বিজেপি কর্মী সমর্থকরা।বিজেপির অভিযোগ, তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা কিঙ্কর মাঝির ওপরে গুলি চালায়। তারপর বিজেপি বৃহস্পতিবারে ১২ ঘন্টার বাগনান বনধের ডাক দেয়। বিজেপির ডাকা বনধের মোকাবিলায় বৃহস্পতিবার সকাল থেকেই বাগনান জুড়ে বিশাল পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়। এলাকায় দোকানপাট ছিল বন্ধ। সকালে রথতলায় বিজেপি মিছিল বের করতেই আটকে দেয় পুলিশ। লাঠি চালায় পুলিশ। অন্যদিকে বাগনান স্টেশন এলাকায় তৃণমূল মিছিল বের করে। বেলার দিকে বাগনানে পৌঁছে যান সৌমিত্র খান। পুলিশ তাঁকে এলাকায় ঢুকতে বাধা দেয়। পুলিশের সঙ্গে বাকবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়ে বিজেপি কর্মী সমর্থকরা। সমর্থকরা টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকেন। পুলিশ এই ঘটনায় ছয়জনকে আটক করে। এরপরই উত্তেজনা চরমে ওঠে। বিজেপি কর্মী সমর্থকরা বাগনান থানার সামনে অবস্থান বিক্ষোভ শুরু করেন। থানার গেট ভেঙে ভিতরে ঢোকার চেষ্টাও হয়। মাটিতে ফেলে দেওয়া হয় সমস্ত গার্ড রেল।ক্ষোভে ফেটে পড়েন সাংসদ। তিনি রাজ্য প্রশাসনের বিরুদ্ধে চরম হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘এবার গোটা হাওড়া জ্বলবে। দলের কর্মীদের মিথ্যা মামলায় ফাঁসানো হচ্ছে’। তিনি সাংবাদিকদের সামনে মুখ্যমন্ত্রীকে ‘খুনি মমতা’ সম্মোধন করে জানান, আগামীকাল থেকে যুব মোর্চা বৃহত্তর আন্দোলনে নামবে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button