রাজ্য

ভোটের আগে দরাজহস্ত মুখ্যমন্ত্রী।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক: আগামী বিধানসভা ভোটের দিকে তাকিয়ে বিরোধী দলগুলি শুরু করে দিয়েছে প্রস্তুতি। মনীশ শুক্লা হত্যাকাণ্ডের পর বিজেপি তোলপাড় করে দিয়েছে রাজ্য। ঠিক সেই মুহুর্ত্বে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় যেন আলাদিনের আশ্চর্য প্রদীপ হাতে  নিয়ে উপস্থিত জঙ্গলমহলে। গত সপ্তাহে উত্তরবঙ্গ সফরে গিয়ে দিয়েছিলেন ব্যাপক প্রতিশ্রতি। চাকরি দেবার ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন দরাজহস্ত। প্রায় ২৯১ জন প্রাক্তন কেএলও জঙ্গি ও লিঙ্কম্যানদের রাজ্য পুলিশে স্পেশাল হোমগার্ড হিসাবে নিয়োগ করবে রাজ্য। ইতিমধ্যেই নিয়োগ প্রক্রিয়া সংক্রান্ত কাজ করা হচ্ছে। উত্তরবঙ্গের বিভিন্ন জেলায় একাধিক নাশকতামূলক কাজের সঙ্গে এঁদের নাম জড়িয়ে ছিল। কার্যত উত্তরবঙ্গ পুলিশের ঘুম উড়িয়ে দিয়েছিলেন এঁরা। কামতাপুর লিবারেশন অর্গানাইজেশন বা কেএলও-র বিভিন্ন ব্যাচে কেউ ভুটানের পিপিং ক্যাম্পে,কেউ বাংলাদেশের পার্বত্য চট্টগ্রামে, কেউবা নেপালে অস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন। আবার অনেকেই কেএলও-র সক্রিয় লিঙ্কম্যান হিসেবে কাজ করতেন। অনেকে জেলও খেটেছেন। এবার এরাই খাঁকি উর্দিতে প্রশাসনিক কাজ করবেন। রাজ্য পুলিশে সামিল করা হবে মূলস্রোতে ফেরা ব্যক্তিদের। এবার ভোটের আগে জঙ্গলমহলকে গুছিয়ে নিতে তৎপর মমতা উত্তরবঙ্গ সফর থেকে ফিরেই জঙ্গলমহল সফরে। খড়গপুরে প্রশাসনিক সভা থেকে দরাজহস্ত মমতা বন্দোপাধ্যায় আদিবাসীদের জন্য বড় ঘোষণা করলেন। এবার থেকে হাতির হানায় কেউ মারা গেলে আর্থিক সাহায্যের পাশাপাশি পরিবারের তরফ থেকে এক জনকে হোমগার্ডের চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘পশ্চিম মেদিনীপুরের জঙ্গলমহল এলাকায় হাতির তাণ্ডব খুব বেশি। প্রায়ই হাতি হানা দেয়’।  এছাড়াও মাওবাদী হামলায় মৃত এবং ১০ বছরের অধিক সময় ধরে নিখোঁজ ব্যক্তিদের পরিবারের একজনকে চাকরি অথবা ৪ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে বলে প্রতিশ্রুতি দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button