রাজ্য

নিচ থেকে উপর পর্যন্ত সকল তৃণমূল নেতৃত্ব তোলাবাজির সাথে যুক্ত: নরেন্দ্র মোদী

নিজস্ব সংবাদদাতা নদীয়া : একদিকে প্রধানমন্ত্রী তো আরেকদিকে মুখ্যমন্ত্রী! এভাবেই চরম গ্রীষ্মের দুপুরে রাজনৈতিক বাতাবরণ আরো তপ্ত হয়ে উঠলো নদীয়ার রাজনীতিতে। গতকাল ঠিক এ সময়, দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী শান্তিপুর বিধানসভার প্রার্থী জগন্নাথ সরকার এর প্রচার করে গেলেন রোড শো’র মাধ্যমে। মাত্র 72 ঘণ্টার ব্যবধানে গত নয় তারিখে বিজেপি প্রার্থী বঙ্কিম ঘোষ এর সমর্থনে চাকদায় এসেছিলেন জে পি নাড্ডা, ঠিক তার এক দিন বাদে অর্থাৎ 10 তারিখে কৃষ্ণনগরের প্রধানমন্ত্রী, গতকাল 11 তারিখ শান্তিপুরে অমিত শাহ, আজ কল্যাণীতে প্রধানমন্ত্রী, আগামীকাল শান্তিপুরে আসতে চলেছেন মিঠুন চক্রবর্তী। স্বভাবতই নদীয়ার রাস্তায় বিভিন্ন পদযাত্রার সাথে আকাশের ও দখল নিয়েছে রাজনৈতিক হেলিকপ্টার। আজ প্রধানমন্ত্রী স্বভাবসিদ্ধ ভাবেই বাংলার মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করতে ছাড়েননি, একাধিকবার “দিদি… ও… দিদি…” সম্বোধনে যুব সম্প্রদায়ের মন জয় করেছেন তিনি। একটি ভোট প্রদানে কৃষক পাবে 18000, আয়ুষ্মান ভারতের মাধ্যমে 5 লক্ষ টাকার সুবিধা পাবে পশ্চিমবঙ্গবাসী, রেলপথ এবং সড়কপথের বিস্তার লাভ করবে আরো। তিনি জানান, কেন্দ্রীয় তথ্য-সম্প্রচার দপ্তর এর সুফলে মোবাইল ইন্টারনেট এখন হাতের নাগালে, তাই বাড়ির মায়েরা বোনেরাও বাড়িতে বসেই ধরে ফেলেছেন দিদির কারসাজি। শ্যামাপ্রসাদ মুখার্জী, ডঃ বিধান চন্দ্র রায়ের স্বপ্নের কল্যাণীকে ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি খোলা তো দূরে থাক বন্ধ কল-কারখানা গুলো আজও ভুলতে পারলো না এই তৃণমূল সরকার। কিন্তু ডবল ইঞ্জিন সরকারের মাধ্যমে, আমি কথা দিচ্ছি শিল্পনগরী আবারো ফিরে আসবে এই কল্যাণীতে। ভারতবর্ষের অন্যতম মুখ হবে পশ্চিমবঙ্গ। বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও প্রকল্পের টাকা নাম পরিবর্তন করে নিজে নেত্রী হয়েছে এ রাজ্যের। প্রতিটা বাড়িতে শৌচালয়, মাতৃকালীন 36 সপ্তাহ বেতনসহ ছুটি, বিনামূল্যে গ্যাস, মানধন যোজনা, বেকারদের স্বনির্ভর লোন, আরো বেশ কিছু সুবিধা কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক প্রদত্ত হয় যার পুরো সুফল উনি নিজে নেন। বেশ কিছু প্রকল্প তিনি এ রাজ্যে হতে দেননি, যার মধ্যে আয়ুষ্মান ভারত অন্যতম। সরকারি 5 লক্ষ টাকা চিকিৎসা ব্যয় বরাদ্দ থেকে বঞ্চিত রেখেছেন তিনি। নিচ থেকে উপর পর্যন্ত সকল তৃণমূল নেতৃত্ব তোলাবাজির সাথে যুক্ত। আর আমরা আধার কার্ড প্যান কার্ডের মতো তথ্য থেকে জানতে পারি কার সরকারি সহযোগিতা প্রয়োজন আর কারো নয়! কিন্তু তৃণমূলের ক্ষেত্রে দল করলে মিলে সুবিধা না করলে হয় বঞ্চিত। এই সরকারের সাইনবোর্ড বদল হতে চলেছে খুব অল্পসময়ের মধ্যেই।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

five × four =

Back to top button