অন্যান্য

-: অমৃতকথা :-

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক :বাংলা দিনপঞ্জী :সুপ্রভাত, আজ ১৮ই কার্ত্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (১৮৫ রামকৃষ্ণাব্দ) বুধবার (৪ঠা নভেম্বর ২০২০) ।তিথি : আজ শুদ্ধ আশ্বিন কৃষ্ণা চতুর্থী রাত্রি ২।৩ পর্যন্ত ।             

-: অমৃতকথা :- (আজ থেকে পর পর কয়েকদিন রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘দুঃখ’ প্রবন্ধের নির্বাচিত অংশ অমৃতকথা হিসেবে নিবেদন করা হচ্ছে) দুঃখ : পর্ব – ১ “জগৎসংসারের বিধান সম্বন্ধে যখনই আমরা ভাবিয়া দেখিতে যায় তখনই, এ বিশ্বরাজ্যে দুঃখ কেন আছে এই প্রশ্নই সকলের চেয়ে (বেশী) সংশয়ে আমাদিগকে আন্দলিত করে তোলে । আমরা কেহ তাহাকে মানব পিতামহের আদিম পাপের শাস্তি বলিয়া থাকি, কেহ বা তাহাকে জন্মান্তরের কর্মফল বলিয়া জানি, কিন্তু তাহাতে দুঃখ তো দুঃখই থাকিয়া যায় । না থাকিয়া যে জো নাই। দুঃখের তত্ত্ব আর সৃষ্টির তত্ত্ব যে একেবারে একসঙ্গে বাঁধা । কারণ, অপূর্ণতায় তো দুঃখ এবং সৃষ্টিই যে অপূর্ণ। সেই অপূর্ণতায় বা কেন ? এটা একেবারে গোড়ার কথা । সৃষ্টি অপূর্ণ হইবে না, দেশে কালে বিভক্ত হইবে না, কার্যকারণে আবদ্ধ হইবে না, এমন সৃষ্টিছাড়া আশা আমরা মনেও আনিতে পারি না ।অপূর্ণের মধ্য দিয়া নহিলে পূর্ণের প্রকাশ হইবে কেমন করিয়া ?উপনিষৎ বলিয়াছেন, যাহা কিছু প্রকাশ পাইতেছে তাহা তাঁহারই অমৃত আনন্দরূপ । তাঁহার মৃত্যুহীন ইচ্ছাই ইচ্ছাই এই-সমস্ত রূপে ব্যক্ত হইতেছে । ঈশ্বরের এই-যে প্রকাশ, উপনিষৎ ইহাকে তিন ভাগ করিয়া দেখিয়াছেন । একটি প্রকাশ জগতে, আর-একটি প্রকাশ মানবসমাজে, আর-একটি প্রকাশ মানবাত্মায় । একটি শান্তং, একটি শিবং, একটি অদ্বৈতং ।রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর (গ্রন্থসূত্র : ‘ধর্ম’ , প্রবন্ধ – দুঃখ)

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button