অন্যান্য

-: অমৃতকথা :-

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক :বাংলা দিনপঞ্জী :সুপ্রভাত, আজ ১৫ই কার্ত্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (১৮৫ রামকৃষ্ণাব্দ) রবিবার (ইং : ১লা নভেম্বর ২০২০) ।তিথি : আজ শুদ্ধ আশ্বিন কৃষ্ণা প্রতিপদ রাত্রি ৯।৩৩ পর্যন্ত ।

-: অমৃতকথা :- শক্তি আরাধনা পর্ব – ৬”এখানে স্বভাবতই প্রশ্ন জাগে, জীবনের সর্বস্তরে যে শক্তির এই অপরিসীম প্রভাব, সেই শক্তির মূলই বা কোথায়, আর তাহার স্বরূপই বা কি? চণ্ডীতে পঞ্চম অধ্যায়ে দেবগণকৃত স্তবে আমরা দেখতে পাই যে – কি জড় কি চেতন, সকলের মধ্যে কোথাও গুপ্ত, কোথাও ব্যক্তভাবে তিনি  অবস্থিতা ।      তন্ত্রমতে এই দেবীই পরমেশ্বরী মহামায়া । ইনিই অঘটন ঘটন পটীয়সী ব্রহ্মাত্মিকা শক্তি । এই মহামায়া নিত্যা আবার এই জগৎপ্রপঞ্চ তাঁহারই বিরাট মূর্তি ।      মহিষাসুর বধের পর ইন্দ্রাদিদেবগণ দেবী মহাশক্তির যে স্তব করেছিলেন তা হল – আমরা সেই মহাশক্তিরূপিণী দেবীকে প্রণাম করি । যিনি দেবতাদের শক্তিপুঞ্জের ঘনীভূত মূর্তি, যিনি স্বীয় মায়া-শক্তির প্রভাবে এই বিশ্বজগৎ উৎপাদনপূর্বক তাহার প্রত্যেক অণু-পরমাণুর ভিতরে ওতপ্রোতভাবে অনুপ্রবিষ্ট থাকিয়া সমগ্র বিশ্বে পরিব্যাপ্ত রহিয়াছেন এবং যিনি সমস্ত দেবতা ও মহর্ষিগণের আরাধ্যা – সেই বিশ্বজননী মহাশক্তি আমাদের সর্ববিধ মঙ্গল বিধান করুন । তাঁহার বিশ্ববিধানের মধ্যে আমরা যেন সর্ববিধ কল্যাণ উপলব্ধি করি । বিশ্ববিধায়িনী এই মহাশক্তিকে যত গভীর ও ব্যাপকভাবে আপনারই স্নেহময়ী জননীরূপে প্রাণে প্রাণে অনুভব করা যায়, ততই সমস্ত শক্তি, সমস্ত ঐশ্বর্য ও সমস্ত বিদ্যা নিজের করতলগত বলিয়া বোধ হয় । তখনই এই সংসারে সকল শত্রু নিঃশেষে বিজিত, সকল বিঘ্ন সুদুরে অপসারিত এবং সকল অজ্ঞান এক অনন্ত জ্ঞানে নিমজ্জিত হয় । ” স্বামী প্রমেয়ানন্দ (গ্রন্থসূত্র : পূজাবিজ্ঞান) ।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button