অন্যান্য

-: অমৃতকথা :-

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক : বাংলা দিনপঞ্জী :সুপ্রভাত, আজ ২৯শে আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (১৮৫ রামকৃষ্ণাব্দ) শুক্রবার (ইং : ১৬ই অক্টোবর ২০২০) ।তিথি : আজ মল-আশ্বিন অমাবস্যা রাত্রি ১।৪৯ পর্যন্ত । রাত্রি ১।৪৯ গতে মলমাস নিবৃত্তিঃ ।* আজ বিশ্ব খাদ্য দিবস। -: অমৃতকথা :-আজ অমাবস্যা এবং রাত্রে মলমাস সমাপ্ত হচ্ছে । অন্যান্য বছর দুর্গাপূজার ঠিক আগের অমাবস্যাতে মহালয়া হয়, কিন্ত এবছর মলমাসের জন্য সব কিছু একমাস পিছিয়ে গেছে, নাহলে আজকের দিনে রেডিও-টিভি সব যায়গা চণ্ডীপাঠে মুখরিত থাকত । আজকেও হয়ত কেউ কেউ চণ্ডী পাঠ করবেন বা শুনবেন । আজকের ‘অমৃতকথা’য় তাই চণ্ডীপাঠের তাৎপর্য নিবেদন করছি ।      “শ্রীশ্রীচণ্ডী পাঠের মধ্য দিয়ে মনে দেবসংস্কারগুলিকে জোরালো করা হয় । আর দেবসংস্কারগুলি জোরালো হলেই তা স্বতঃস্ফূর্তভাবে মাতৃশক্তিতে রূপায়িত হয়ে যায় এবং বীরবিক্রমে অসুরশক্তির সঙ্গে তখন যুদ্ধে রত হয় । এর ফলে আমাদের মনে ইতিবাচক চিন্তা বেড়ে যায় । অন্তরে সমস্ত মনোবৃত্তিগুলি আত্মিক হয়ে যায় । তাই শ্রীশ্রীচণ্ডীর দিব্যশ্লোকগুলি পড়লে মনের ভাব বদলে যায় । মনোবৃত্তিগুলি দিনে দিনে সতেজ, প্রাণময় ও আনন্দে মশগুল হয়ে ওঠে । মন থেকে হতাশা ও ব্যর্থতার ভাব কেটে যেতে থাকে । মনের গভীরে  আনন্দের তীব্রতা বৃদ্ধি পায় এবং দেহ-মন সহ সমস্ত ব্যক্তিত্বের মধ্যে দেবভাবের প্রকাশ ঘটতে থাকে । চণ্ডীপাঠের ছন্দের সঙ্গে সঙ্গে মনের অশুভ সংস্কারগুলির বীজ ধ্বংস হয়ে যায় । যেহেতু চণ্ডীর প্রত্যেকটি শব্দ, শ্লোক, অর্থ মায়ের দিব্য অঙ্গের প্রভায় জ্যোতির্ময় হয়ে রয়েছে – তাই তা আবেগ দিয়ে শুদ্ধ উচ্চারণ করে পাঠ করলেই ক্ষুদ্র মনে যে তরঙ্গ তৈরি হয় তা বৃহৎ মনে ধীরে ধীরে পৌঁছে যায় । আর এই বৃহৎ-মন বা বিশ্বমন হল মায়ের মন । এই বিশ্বমানসের সাত্ত্বিক অংশে সমস্ত শুভশক্তি স্তরে স্তরে সঞ্চিত আছে । অনন্ত জ্ঞান, প্রেম, পবিত্রতা, শুভবোধ সবকিছু বিশ্বমানসে বিরাজ করছে । শ্রীশ্রীচণ্ডীপাঠের মধ্য দিয়ে যে মহাজাগতিক শব্দব্রহ্ম তরঙ্গারারে উৎপাদিত হচ্ছে তা সূক্ষ্মতরঙ্গে ভাসতে ভাসতে বিশ্বমানসের শুভ তরঙ্গে ঢেউ হিসাবে আঘাত করছে । এর ফলে সমরূপী শুভ তরঙ্গ সেই মুহূর্তে উৎপন্ন হয়ে – সূক্ষ্মতম ইথারের মাধ্যমে চণ্ডীপাঠকারীর কাছে ফিরে আসছে এবং তার অন্তরস্থিত অসুরশক্তিকে বিনাশ করছে । তাঁর মন তখন দিব্য মাতৃচেতনায় পূর্ণ হয়ে ওঠে । আর এই পূর্ণতার প্রভায় তাঁর শরীর ও মন ক্রমশ দিব্যভাবে উপনীত হয় এবং তাঁর সমগ্র দেহ-মনে এক অপরিসীম আনন্দের ঢেউ খেলে যায় ।”স্বামী বেদানন্দ । (স্বামী বেদানন্দ ‘রামকৃষ্ণ বিবেকানন্দ মিশনে’র বর্তমান সহসম্পাদক । তাঁর লিখিত একটি প্রবন্ধ – ‘শ্রীশ্রীচণ্ডীপাঠে কেমন মঙ্গল হয় ?’ থেকে আজকের অমৃতকথা সঙ্কলিত ।)
সঙ্কলক : চৌসিশ ।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button