অন্যান্য

অমৃতকথা :-দুর্গা – মহাশক্তি ও মহামাধুর্যের প্রতীক :-পর্ব – ৪

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক:বাংলা দিনপঞ্জী : সুপ্রভাত, আজ ৬ই আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ (১৮৫ রামকৃষ্ণাব্দ) বুধবার (ইং : ২৩শে সেপ্টেম্বর ২০২০) ।তিথি : আজ মল-আশ্বিন শুক্লা সপ্তমী রাত্রি ১।১৫ পর্যন্ত । 

অমৃতকথা :-দুর্গা – মহাশক্তি ও মহামাধুর্যের প্রতীক :-পর্ব – ৪ জীব স্বরূপত শিবই । জীবের অন্তর্নিহিত পশুত্বের বিনাশের পর দেবতার জাগরণ হয় । সুতরাং দেবতা বিরাজ করেন বহির্জগতে নয় – অন্তর্জগতেই । সেই অন্তর্নিহিত দেবত্বের বিকাশের জন্য মানুষই নিজ নিজ অভিরুচি অনুযায়ী দেবতা সৃষ্টি করে । প্রাচীন পুরাণে তেত্রিশ কোটি দেবতার কথা বলা হয়েছে । এই সংখ্যা যে সমকালের পৃথিবীর জনসংখ্যা নয়, তা কি কেউ জোর করে বলতে পারে ?শিব, দুর্গা ও কালী নিয়ে ভগিনী নিবেদিতার সুন্দর ধারণার কথা আমাদের জানা আছে । একবার তিনি তাঁর প্রিয় বান্ধবীকে লেখেন : “কালী সম্বন্ধে একটা নতুন ভাব মনে জেগেছে । মায়ের পদতলে শায়িত শিবের ঢুলুঢুলু চোখ দুটি মায়ের দৃষ্টির সঙ্গে মিলেছে কি করে তাই দেখছিলাম । কালী ঐ সদাশিবের দৃষ্টির সৃষ্টি । নিজেকে আড়াল রেখে সাক্ষিরূপে তিনি দেখছেন দেবাত্মশক্তিকে । শিবই কালী, কালীই শিব । মানুষের মনে বিপুল শক্তির আলোড়ন চলছে, তারই প্রতিচ্ছবি ফুটে উঠেছে দেবতার এই রূপে – এই কি সত্য ? অর্থাৎ মানুষই কি দেবতাকে সৃষ্টি করে ? তাই ভাবি, বিশ্বের রহস্য কোন লাস্যময়ীর লীলাচাতুরীর হালকা ওড়নায় ঢাকা ।”
স্বামী দেবেন্দ্রানন্দের ‘বেলুড় মঠে স্বামীজীর দুর্গা পূজা’ গ্রন্থ থেকে সঙ্কলিত ।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button