অন্যান্য

বাংলা ক্যালেন্ডার অনুযায়ী, চৈত্র মাসের শেষ দিন বা চৈত্র সংক্রান্তিতে পালিত হয় চড়ক পুজো।

নিজস্ব সংবাদদাতা বাঁকুড়া : বড়জোড়া ব্লকের হাট আশুড়িয়ার  বিরিঞ্চি নারায়ণের চড়ক  পূজাকে কেন্দ্র করে মেতে উঠল এলাকার সাধারণ মানুষ । ৪০০ বছরের পুরনো বিরিঞ্চি নারায়ণের গাজন উপলক্ষে চড়ক পুজো অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে এ বছরও তার অন্যথা হয়নি । কয়েক হাজার সাধারণ মানুষ বুধবার এই চড়ক পুজোতে অংশগ্রহণ করে থাকেন । চড়ক পূজা চৈত্রসংক্রান্তিতে অর্থাৎ চৈত্র মাসের শেষ দিবসে পালিত হয়। আগের দিন চড়ক গাছটিকে ধুয়ে-মুছে পরিষ্কার করা হয়। সোনামুখী ব্লক এর মাজীরডাঙ্গা গ্রামের রামেশ্বর গাজন উৎসবে উপলক্ষে চড়ক পূজা হয়। প্রায় সাড়ে ৩০০ বছরের প্রাচীন গাজন এলাকার সাধারণ মানুষের কাছে অত্যন্ত জনপ্রিয়। চড়ক উৎসবে গ্রামে আত্মীয়-স্বজনরা ভিড় জমান । দূর-দূরান্ত থেকে সাধারণ মানুষ এই চড়ক পূজা দেখতে জনপ্লাবন৷                                                  আনুমানিক ৮০০ বছরের ও বেশী  পুরোনো পাঁচালের চড়ক পূজা ৷ পাঁচাল গাজন কমিটির সদস্য সুব্রত মিশ্র বলেন গত বছর করোনার জন্য ভক্তদের ইচ্ছে থাকা সত্ত্বেও কোভিড বিধি  মেনে চলার জন্য শুধুমাত্র পুজো পার্বনের মধ্য দিয়েই চড়ক সারতে হয়েছিল এই বছর ওই জন্য প্রায় ১১০০ ভক্ত হয়েছে। প্রশাসনের নিয়ম মেনেই মেলা হয়েছে।দর্শনার্থীদের মধ্যেও অনেক সচেতনতা রয়েছে। চড়ক শান্তিপূর্ণ  ভাবেই চলছে। বড়জোড়া ব্লকের বেলিয়াতোড়  থানার ছন্দার গ্রাম পঞ্চায়েতে বাণেশ্বর চড়ক পূজা অনুষ্ঠিত হলো । সন্ন্যাসীরা নিজের শরীর বড়শিতে বিঁধে চড়কগাছে ঝুলে শূণ্যে ঘুরতে থাকেন। আবার সন্ন্যাসীর আর্শীবাদ লাভের আশায় শিশু সন্তানদের শূন্যে তুলে দেন অভিভাবকরা। সন্ন্যাসীরা ঘুরতে ঘুরতে কখনও কখনও শিশুদের মাথায় হাত দিয়ে আর্শীবাদ ও করেন। চড়ক পূজায় পিঠে বাণ ফুড়িয়ে চড়ক গাছের সঙ্গে বাশঁ দিয়ে তৈরি করা বিশেষ এক ধরনের চড়কায় ঝুলন্ত দড়ির সঙ্গে পিঠের বড়শি বেঁধে দেওয়া হয়। তখন বাণ বিদ্ধ সন্ন্যাসীরা শূণ্যে ঝুলতে থাকেন।  বড়জোড়া বিধানসভার গঙ্গাজলঘাটি ব্লকের পিড়রাবনি অঞ্চলে চন্দ্রশেখর জিউএর গাজন উপলক্ষে চড়ক পূজা অনুষ্ঠিত হলো । বুধবার এই পুজোতে সাধারণ মানুষের উপস্থিতি ছিল চোখে পড়ার মতো । প্রাচীন রীতিনীতিকে মান্যতা দিয়ে অন্যান্য বছরের ন্যায় এ বছরও চড়ক পুজোর আয়োজন করা হয়েছে ।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

two × one =

Back to top button