কলকাতা

শিলিগুড়িতে বিজেপি কর্মীর মৃত্যুতে শটগান তত্ত্ব।

নিউস বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক : শিলিগুড়িতে বিজেপি কর্মী উলেন রায়ের মৃত্যুতে এবার ” শটগান” তত্ত্ব। পাখি মারার ব্ন্দুকেই নাকি মৃত্যু হয় বিজেপি কর্মীর। সকালেই রাজ্য পুলিশ মৃত্যুর কারণ হিসাবে টুইটারে জানিয়ে দেয়, ‘ শটগানের আঘাতের কারণে মৃত্যু হয়েছে। শিলিগুড়িতে বিক্ষোভের সময় সশস্ত্র লোকজনদের নিয়ে আসা হয়েছিল এবং তারা আগ্নেয়াস্ত্র থেকে গুলি চালিয়েছে।’ আর সেই ময়নাতদন্ত রিপোর্টকে ঢাল করে তড়িঘড়ি সাংবাদিক সম্মেলন করে রাজ্যের শাসক দল। মঙ্গলবার তৃণমূল ভবনে সাংবদিকদের মুখোমুখি হয়ে রাজ্যের পঞ্চায়েত মন্ত্রী ও দলের মূখপাত্র সুব্রত মুখোপাধ্যায় বলেন, ” পুলিশের গুলিতে উলেন রায়ের মৃত্যু হয়নি। শটগানের গুলিতে মৃত্যু হয়েছে তার। আর পুলিশ এই ধরনের শটগান ব্যবহার করে না।” সোমবার শিলিগুড়িতে উত্তরকন্যা অভিযানের ডাক দেয় বিজেপি। সেই কর্মসূচীকে কেন্দ্র করে কার্যত রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় গোটা শহর। অভিযোগ, বিক্ষোভে  পুলিশ গুলি চালায়, আর তাতেই মারা যান উলেন রায় নামে এক বিজেপি কর্মী। আজ  পুলিশের গুলিতে দলীয় কর্মীর মৃত্যুর অভিযোগে উত্তরবঙ্গ বনধের ডাক দিয়েছে বিজেপি। সাড়াও মিলেছে চোখে পড়ার মতো।  যদিও গেরুয়া শিবিরের অভিযোগ খারিজ করে পাল্টা বিজেপিকেই কাঠগড়ায় দাঁড় করিয়েছে তৃণমূল। এদিন তৃণমূল ভবনে সাংবাদিক সম্মেলন করে পঞ্চায়েত মন্ত্রী বলেন, “পুলিশকে আক্রমণ করতেই একাধিক শটগান  মিছিলে আনা হয়েছিল। মৃতের কাছেও শটগান ছিল। সঙ্গের কেউ খুব কাছ থেকে গুলি চালায়। ” শটগানের গুলিতে আদৌ মৃত্যু সম্ভব কি?  সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের ব্যাখ্যা,” দুর্বল কাউকে শটগান দিয়ে মারলে মৃত্যু হতে পারে।” পাশাপাশি তাঁর আরও বক্তব্য,” পুলিশকে আক্রমণ করতেই এইসব করা হয়েছে। রাজ্যকে অশান্ত করতেই এইসব করছে বিজেপি। ” তবে  বিজেপির বক্তব্য,  কিছু  একটা ধামাচাপা দিতেই,  রাতের অন্ধকারে ময়নাতদন্ত করা হয়েছে।  বিজেপির রাজ্য সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসু বলেন, ‘রিপোর্ট থেকে আমাদের অভিযোগ প্রমাণিত হচ্ছে যে পুলিশ আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করে ছিল এবং উলেনকে তারাই গুলি করেছে। আমাদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ তোলা হচ্ছে, তা হাস্যকর। কারণ পুলিশের ব্যারিকেডের দিকে যাওয়ার সময় উলেনের বুকে গুলি লেগেছে। যদি মিছিলের কেউ তাঁকে গুলি করত, তাহলে পিছনে গুলি লাগত।’ 

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three × three =

Back to top button