কলকাতা

ভোট আসতেই কল্পতরু মুখ্যমন্ত্রী, ডিএ থেকে ছাত্র-ছাত্রীদের ট্যাব ঘোষনা মুখ্যমন্ত্রীর।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক: সামনেই ভোট। আর চেয়ার দখলের লড়াইয়ে রাজ্যের শাসক দলের ঘাড়ে নি:শ্বাস ফেলছে পদ্ম শিবির। আর সেই ভোট বৈতরণী পার হতে এবার সরকারী কর্মচারী আর ছাত্র-ছাত্রীদের ” টার্গেট” করলেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। গত লোকসভা নির্বাচনে পোস্টাল ব্যালটে ভরাডুবি হয় শাসকদলের। এবার তাই সেই সরকারী কর্মচারীদের জন্য ডিএ ঘোষনা করলেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। নতুন বছরের শুরুতেই ৩ শতাংশ ডিএর ঘোষনা করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “কোভিড পরিস্থিতি চলছে। রাজ্য সরকারের হাতে টাকা কম। তবু প্রতি বছরের মতো এবারও জানুয়ারি মাসে ৩ শতাংশ ডিএ পাবেন আপনারা।  এর দরুণ রাজ্যের ২ হাজার কোটি টাকা খরচ হবে।”  শুভেন্দুর দল ছাড়ার পরিস্থিতি তৈরী হতেই, তার হাতে থাকা কর্মচারী ফেডারেশনের নেতৃত্বকে নিয়ে তড়িঘড়ি বৈঠকে বসেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। নবান্নে সেই বৈঠকে তাঁদের অভাব-অভিযোগ শোনেন তিনি। এরপরই মহার্ঘভাতা দেওয়ার বিষয়টি জানিয়ে দেন। রাজনৈতিক মহলের মতে ভোটের আগে মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষণা যথেষ্ট গুরুত্বপুর্ণ। ইতিমধ্যে বকেয়া মহার্ঘ ভাতা মেটানো ও ডিএ বৃদ্ধি নিয়ে রাজ্য সরকার বনাম কংগ্রেস সমর্থিত সরকারি কর্মচারীদের সংগঠন কনফেডারেশনে’র  মামলা চলছে। তার মধ্যেই এদিন এই ঘোষনা করলেন। এদিনের বৈঠকে নবান্ন থেকেই কেন্দ্রীয় সরকারীদের পাশে দাড়িয়ে কেন্দ্রকে একহাত নিলেন তিনি। মমতার অভিযোগ, “কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মচারীদের কথা বলতে দেওয়া হয় না। শ্রমিকদের চুপ করিয়ে রাখা হচ্ছে। তাঁদের ভবিষ্যৎ অনিশ্চিত। যে কোনও সময় চাকরি কেড়ে নেওয়া হচ্ছে।” পাশাপাশি রাজ্যের কর্মচারীরা ভাল আছেন বলে মত মমতার।  এই বৈঠকেই উঠে আসে রাজনীতির কথাও। বিরোধীদের বিশেষ করে গেরুয়া শিবিরকে আক্রমণ করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন,” হি:সা এক জিনিস। রাজনীতি এক জিনিস। উন্নয়ন আর পারফরমেনস আলাদা জিনিস।” এদিন কর্মচারী সংগঠনকে কেন্দ্রের জনবিরোধী নীতির বিরুদ্ধে আন্দোলনে নামার ডাক দেন। তাঁদের হাতে লিখে পোস্টারিং করা, কেন্দ্রীয় সরকারি সংস্থার বঞ্চিত শ্রমিকদের নিয়ে আন্দোলনে নামার পরামর্শ দেন তিনি। বলেন,” কেন্দ্রীয় সরকারী কর্মচারীরা অনিশ্চিয়তার মধ্যে আছে। রেল, সেইল, ভেল, বিএসএনএলে যারা চাকরি করেন তাদের চাকরি সুরক্ষিত নয়, যে কোনও সময এইগুলো বন্ধ হতে পারে।” পাশাপাশি  এদিন বকেয়া নিয়েও কেন্দ্রকে একহাত নিয়ে মমতা বলেন,” আমাদের পাওনা ৮৫ হাজার কোটি টাকা। বড় বড় কথা বলছে। ” পাশাপাশি এদিন ছাত্র-ছাত্রীদের জন্যও ঢালাও ঘোষনা মুখ্যমন্ত্রীর। করোনা পরিস্থিতিতে বন্ধ স্কুল-কলেজ। ভরসা সেই অনলাইন ক্লাস।  এবার সাড়ে  ৯ লক্ষ পড়ুয়াকে একটি করে ট্যাব দেওয়ার কথা ঘোষণা করলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার নবান্নে সরকারি কর্মী সংগঠনের সদস্যদের সঙ্গে বৈঠকে সাংবাদিকদের একথা জানান তিনি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়  জানিয়েছেন, ” রাজ্যের ৯ লক্ষ পড়ুয়াদের হাতে পৌঁছে দেওয়া হবে ট্যাব। তাতে কারও বাড়িতে স্মার্টফোন না থাকলেও সে অনায়াসেই করতে পারবে অনলাইন ক্লাস। এছাড়াও রাজ্যের বেশ কয়েকটি স্কুলে ট্যাব কিংবা কম্পিউটার দেওয়ার কথাও ভাবা হচ্ছে। যার মাধ্যমে অনলাইন ক্লাস করা সম্ভব হবে।”  এর আগে দিল্লীর কেজরিওয়াল সরকারও এই পদ্ধ্তি চালু করেছে। এদিকে, এদিন রাজ্যবাসীকে স্বস্তি দিয়ে আরেকটি বড়সড় ঘোষণা করেন রাজ্য সরকার। অতিমারী পরিস্থিতিতে কমল বেসরকারি ল্যাবে আরটি-পিসিআর টেস্টের খরচ। এবার থেকে মাত্র ৯৫০ টাকাতেই করা যাবে পরীক্ষা।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

three + 12 =

Back to top button