কলকাতা

সময় একদিন আসবেই, উত্তরপ্রদেশের ওই গ্রামে আমি যাব :‌ মমতা।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক : ‌হাথরাস কাণ্ডের প্রতিবাদে পথে নেমে বিজেপি–র বিরুদ্ধে সুর চড়ালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার  বিকেল ৪টে। গোটা রাজপথ তখন কার্যত জনতার দখলে।  শয়ে শয়ে তৃণমূল কর্মী–সমর্থকের পাশাপাশি সাধারণ মানুষও মিছিলে পা মেলান। বিড়লা তারামণ্ডল থেকে গান্ধীমূর্তি পর্যন্ত রাস্তার দুই ধারে শুধু মানুষ আর মানুষ। তার মাঝখান দিয়ে এগিয়ে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী। মিছিল শেষ গান্ধী মূর্তির  পাদদেশে। সেখানেই  সভামঞ্চে বক্তব্য পেশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। সুর চড়ান বিজেপির বিরুদ্ধে। বলেন,” ‘‌মনে হচ্ছে এখনই উত্তরপ্রদেশে ছুটে যাই। আমার মন পড়ে রয়েছে সেই গ্রামে।’‌ নির্যাতিতার পরিবারের পাশে দাঁড়াতে সাংসদ ডেরেক ও’‌ব্রায়েন–সহ ৪ জনের একটি প্রতিনিধি দলে হাথরাসে পাঠিয়েছিলেন মমতা। তাঁদের সেখানে আটকে দেওয়া হয় শুক্রবার। আর বৃহস্পতিবার একই কায়দায় আটকে দেওয়া হয় রাহুল গান্ধী-প্রিয়াঙ্কা গান্ধীকে। পুলিশের হাতে আক্রান্ত হন রাহুল। আর শুক্রবার আক্রান্ত হন ডেরেক। ওই ঘটনার নিন্দা জানিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‌ওঁরা গ্রামের এক কিলোমিটারের কাছে পৌঁছে গিয়েছিল। কিন্তু সেখানেই তাঁদের আটকে দেওয়া হয়। সামান্য ভদ্রতাও করা হয়নি ওঁদের সঙ্গে। মহিলাদের গায়ে হাত দিয়েছে পুরুষ পুলিশকর্মীরা। কাল সাংবাদিকদেরও সেখানে হুমকি দেওয়া হয়েছে। তাঁদের গ্রামের ভেতর যেতে না দেওয়ায় তাঁরা সেখানে ধর্নাও করছিলেন। এ কী চলছে উত্তরপ্রদেশে!‌’‌ মমতা বলেন, ‘‌কোনও অপরাধ হলে আগে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে ও তার পর নিয়ম অনুযায়ী বিচার হবে। কিন্তু উত্তরপ্রদেশে অত্যাচার হওয়ার পর বিজেপি সরকার পরিবারের হাতে দেহ না দিয়ে দহন করে দিল। এ কেমন বিচার?‌’‌ এদিন সিঙ্গুর প্রসঙ্গ টেনে বিজেপি–কে হুঁশিয়ারিও দেন  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বলেন, ‘এরকমই এক ঘটনা ঘটেছিল সিঙ্গুরে। তখন আমি ২৬ দিন অনশন করেছিলাম। তাই ‌আজ নয়তো কাল, কাল নয়তো পরশু। সময় একদিন আসবেই। আমি যাব উত্তরপ্রদেশের ওই গ্রামে। বিজেপি আপনারা জানতেও পারবেন না।’‌ তবে জাতীয় ইস্যু হওয়ায় এদিন বাংলায় কম, হিন্দিতেই বেশি কথা বলেছেন মুখ্যমন্ত্রী  মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে দেশে রাষ্ট্রপতি শাসনের সম্ভাবনার জল্পনার কথাও উসকে দিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “কোনও গণতন্ত্র নেই ভারতে। রাষ্ট্রপতি শাসনের দিকে যাচ্ছে দেশ। এ দেশ এখন একনায়কতন্ত্রের সরকার হয়ে দাঁড়িয়েছে।’‌ হাথরাস–কাণ্ডের প্রতিবাদ জানিয়ে ব্লকে ব্লকে মিছিল করার নির্দেশ দিয়েছেন তিনি। রবিবার থেকে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত এই প্রতিবাদ কর্মসূচি চালিয়ে যেতে বলেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button