কলকাতা
Trending

মদন মিত্রকে স্ট্রিং অপারেশন করতে গিয়ে হাতেনাতে ধৃত তিন বিজেপি কর্মী।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক : ফের স্ট্রিং অপারেশনের কবলে মদন মিত্র। তবে এবার সফল হওয়ার আগেই হাতেনাতে ধৃত ৩ বিজেপি কর্মী। ঘটনায় সামনে আসছে মুকুল রায়ের নাম। অভিযোগ, বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেওয়ার নাম করে প্রাক্তন ক্রীড়া ও পরিবহন মন্ত্রী মদন মিত্রকে ফোন করে বেলঘরিয়ার ২৫ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা মৃণাল মুখোপাধ্যায়, ২৮ নম্বর ওযার্ডের বাসিন্দা অঙ্কন দত্ত ও সঞ্জয চক্রবর্তী নামে ৩ ব্যাক্তি। ইস্টার্ন ইন্ডিয়া অটোমোবাইল এসোসিয়েশনের ১৩, বালিগঞ্জরোডের অফিসে তাদের সময় দেন মদন মিত্র। তারপর? মদন মিত্রের বক্তব্য,” ওরা আমাকে বলে আমরা বিজেপি করে পাপ করেছি। আপনার সঙ্গে তৃণমূল করতে চাই। ওরা নাকি আমার সঙ্গে দেখা করে কথা বলবে। আমি ওদের এখানে আসতে বলি।” অভিযোগ প্রায় ৪৫ মিনিট ওই অফিসেই ছিলেন ওই তিন ব্যাক্তি। মদন মিত্রের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, তার মধ্যেই তিনটি ফোন আসে। ২টি ম্যানেজমেনট কোটায় ভর্তির আবেদন অপর ১ তি একটি চিকিৎসা সংক্রান্ত। মদন মিত্রর বক্তব্য, ” বেলঘরিয়ার একটি মেয়ের ভর্তির বিষয়ে কথা বলছিলাম ফোনে। ম্যানেজমেন্ট কোটায়। ঐ মেয়েটি ভর্তির জন্য ৬ লক্ষ টাকা দেবে কোর্স ফি বাকি টা আমি কথা বলে মকুব করাব। ”  অভিযোগ প্রায় প্রথম থেকেই মদন মিত্রের সঙ্গে কথপোকথন লুকিয়ে ক্যামেরা বন্দী করছিল মৃণাল মুখোপাধ্যায় ও অঙ্কন দত্ত। মদন মিত্রের দাবী, ” ওই  মৃণাল নামক ছেলেটি একসময় তৃনমুল করত। পরে মুকুল রায়ের সঙ্গে বিজেপিতে যোগ দেয়। আর ওই অঙ্কন বলে ছেলেটি প্রেসিডেন্সির ছাত্র বলে পরিচয় দিয়ে না জানিয়ে স্ট্রিং অপরেশন করে। এমনকি আমি যে ঐ মেয়েটি যে বলেছিল যে ও ৬ লক্ষ টাকা যোগার করে ভর্তির জন্য দেবে সেটাকে প্রচার করছে আমি নাকি ৬ লক্ষ টাকায় সিট বিক্রি করছি। এরা সবাই বিজেপি করে। মুকুলের সঙ্গে দল করে।”  তাঁর অভিযোগ, এই স্ট্রিং বিজেপির আই টি সেলে কথাতেই করা হচ্ছিল। তবে শেষ পর্যন্ত মদন মিত্রের সঙ্গে থাকা নিরাপত্তা রক্ষী রা পুরো বিষয় টি ধরে ফেলে।


Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button