সম্পাদকীয়
Trending

বিসমিল্লা খানের বাড়ি ভেঙে দেয়া হলো। আসলে ভাঙার ইচ্ছেটা কি অন্য কিছুর?

*বিশেষ সম্পাদকীয়* # সুমিত চৌধুরী#

১৮৫৭সালের মহাবিদ্রোহের ঠিক আগের কথা। ওয়াজেদ আলী শাহ অযোধ্যা থেকে ক্ষমতাচ্যুত হয়ে কলকাতা আসছেন। বেনারসের রাজা ঈশ্বরী প্রসাদ, ওয়াজেদ আলী র ই সামন্ত, কয়েক দিনের জন্য থেকে যেতে বললেন বেনারসে। ওয়াজেদ আলী পাকাপাকিভাবে কলকাতা আসবার আগে কাশীর সংকট মোচন মন্দিরের নহবৎখানায় সানাই বাজানোর ব্যবস্থা করে দিলেন। উল্লেখ্য কাশীর রাজাও মহরমের তাজিয়া রাখতেন।১৮৫৭ র মহাবিদ্রোহে অযোধ্যা উত্তাল হয়েছিল। অযোধ্যার রাজদরবারে বিনোদনের কাজ করতো যে মহিলারা তাদের মধ্যে অনেকে পুরুষের পোশাক পরে রাইফেল হাতে লড়তে লড়তে প্রাণ দিয়েছিল। ৬৫ বছরের এক বৃদ্ধা মারা গিয়েছিলেন ব্রিটিশ আর্মির শহরের ঢোকা আটকাতে গোমতী নদীর সেতু উড়িয়ে দিতে গিয়ে। ব্রিটিশ বিদ্রোহ দমন করার পর ওয়াজেদ আলীর শুরু করা সংকটমোচন মন্দিরের ওই সানাই বন্ধ করে দিল। আর বন্ধ করে দিলো কাশির হিন্দু রাজার তাজিয়া রাখার প্রথা।আর অযোধ্যার দুই গুরুত্বপূর্ণ বিদ্রোহী নেতা কে ধ্বংস হয়ে যাওয়া বাবরি মসজিদের কাছে একটা তেতুল গাছে ফাঁসি দিল।

একজনের নাম আছাই খান। অন্য আর একজনের নাম বাবা রাম চরণ দাস। ১৮৫৬ সালে দুই সম্প্রদায়ের এই দুই নেতা আপোষ মীমাংসায় বসে ঠিক করে দিয়েছিলেন বিতর্কিত বাবরি মসজিদ চত্বরে একইসঙ্গে একদিকে মুসলমানরা নামাজ পড়বেন। অন্যদিকে হিন্দুরা রামলালার পুজো করবেন। দুই সম্প্রদায় এই মীমাংসা মেনে নিয়েছিল। মহাবিদ্রোহ শুরু হতে দুই নেতাই ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ যোগ দেন। বিদ্রোহ দমন করে দুই নেতাকে ব্রিটিশরা তেতুল গাছে ফাঁসি দেয়। মুশকিল হলো, বিদ্রোহ দমন করার পরও ওই দুই নেতার অনুগামীরা সেই তেঁতুল গাছ টাকে পুজো দিতে শুরু করলো ব্রিটিশরা ভয় পেয়ে শেষ অব্দি ওই তেঁতুল গাছ টাকেই কেটে ফেলল।

দেশ স্বাধীন হওয়ার পর ওয়াজেদ আলী শাহর নাতির ছেলে নতুন করে সংকটমোচন মন্দিরে সানাই বাজানোর ব্যবস্থা করেন। সানাই এর গৎ বেঁধে দিয়ে তার সূচনা করেন বিসমিল্লা খান।এটা একটা মসজিদ ভাঙার গল্প।এটা একটা তেঁতুল গাছ কাটার গল্প।এটা একটা বাড়ি ভাঙার গল্প।এটা একটা দেশ ভাঙ্গার গল্প।ওরা যতবার কাটবে ভাঙবে পুড়িয়ে ছারখার করে দিয়ে ভাববে শেষ করে ফেলেছিবাবা রাম চরণ দাস, আছাই খান, বিসমিল্লা খান দের দেখা স্বপ্নগুলো ততবার ফিনিক্স পাখির মতভস্ম শয্যা ছেড়ে উড়ে আসবে।

বন্ধুদের দাবিতে তথ্যসূত্র: মহাবিদ্রোহের ইতিহাস: প্রমোদ সেনগুপ্ত, মেটিয়াবুরুজের নবাব: শ্রীপান্থ, বনেদি কলকাতার ঘরবাড়ি: দেবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায়

( মতামত লেখকের নিজস্ব। লেখক বিশিষ্ট রাজ নৈতিক সাংবাদিক ও বিস্লেষক)

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button