দেশ

চাপে পড়ে বদলে গেল বয়ান। গোর্খাল্যান্ড নয়, জিটিএ নিয়ে বৈঠক চেয়ে রাজ্যকে ‘‌সংশোধিত’‌ চিঠি দিল কেন্দ্র।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক : ঘরে-বাইরে চাপে পড়ে ভোলবাদল কেন্দ্রের। প্রথমে মিটিং ডাকা হয়েছিল বিতর্কিত গোর্খাল্যান্ড নিয়ে, তবে বিরোধীদের প্রবল বিরোধিতায় ও ২০২১ সালের  বাংলার নির্বাচনের কথা মাথায় রেখে ২৪ ঘণ্টার মধ্যে রীতিমত পাল্টি খেয়ে বদলে গেল আলোচনার বিষয়। জানিয়ে দেওয়া হল, গোর্খাল্যান্ড নিয়ে নয়, বরং জিটিএ (গোর্খাল্যান্ড টেরিটোরিয়াল অ্যাডমিনিস্ট্রেশন) নিয়ে আলোচনা চেয়ে রাজ্যকে নতুন করে চিঠি পাঠাল কেন্দ্র। আজকের অর্থাৎ ৫ অক্টোবর ২০২০–র এই চিঠি পাঠানো হয়েছে রাজ্যকে। প্রসঙ্গত, এর আগে(০৩,১০,2020) পাঠানো চিঠিতে সরাসারি গোর্খাল্যান্ড ইস্যু নিয়ে আলোচনার ডাক দিয়েছিল কেন্দ্র। সেই চিঠি পাঠানো হয় রাজ্যের স্বরাষ্ট্রসচিব, জিটিএ–এর প্রধান সচিব, দার্জিলিংয়ের জেলাশাসক ও গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার সভাপতিকে। আর এই চিঠি সামনে আসায় কার্যত ফুসে উঠে বাঙালিরা। নেট দুনিয়ায় একে “বাংলা ভাগের” চক্রান্ত বলেও মত দেন বেশিরভাগ মানুষ। সূত্রের খবর, এমনকি রাজ্য বিজেপি থেকেও বিষয়টি নিয়ে আপত্তি জানানো হয়। বিশেষকরে সামনে রাজ্যে বিধানসভা নির্বাচন, সেখানে দাড়িয়ে গোর্খাল্যান্ড নিয়ে কোন কথাই আদপে বাঙালীর “সেন্তিমেন্টে” আঘাত লাগবে বলে বিজেপির  কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে জানিয়ে দেওয়া হয়। আগের চিঠির মতো বৈঠকের স্থান ও কাল একই রয়েছে এই নতুন চিঠিতে। ৭ অক্টোবর, বুধবার সকাল ১১টায় দিল্লির নর্থ ব্লকে ১১৯ নম্বর রুমে এই বৈঠক ডাকা হয়েছে। এবং এই বৈঠকে সভাপতিত্ব করবেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জি কিসান রেড্ডি।উল্লেখ্য, এর আগে পাঠানো চিঠি প্রকাশ্যে আসতেই বিজেপি ও কেন্দ্রের বিরুদ্ধে বাংলা ভাগের চক্রান্তের অভিযোগ করেন বিরোধীরা। তৃণমূল নেতা গৌতম দেব বলেন, ‘‌বাংলা ভাগের ষড়যন্ত্র করছে বিজেপি। কোনওভাবেই তা সফল হতে দেওয়া যাবে না।’‌ এই নিয়ে বিতর্ক তৈরি হতেই নতুন করে কেন্দ্র চিঠি দিল কিনা তা নিয়ে রাজ্য রাজনীতিতে জল্পনা দেখা দিয়েছে।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button