দেশ

শ্রীকৃষ্ণের জন্মভূমির দাবিতে মামলা দায়ের মথুরার দেওয়ানি আদালতে।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক:- রাম জন্মভূমির পর এবার শ্রীকৃষ্ণের জন্মভূমি। জমি ফেরত চেয়ে মামলা উঠল মথুরা আদালতে। মথুরায় শ্রীকৃষ্ণের জন্মস্থান ও মন্দির চত্বরেই গড়ে উঠেছে ঈদের নামাজ পড়ার জায়গা।  ফেরত দিতে হবে মন্দির চত্বরের ১৩.৩৭ একর জমি। এরকম এক দাবি করে একটি মামলা দায়ের করা হল মথুরার আদালতে। ‘ভগবান শ্রীকৃষ্ণ বিরাজমান’ এর তরফে মামলাটি করেছেন লখনউয়ের রঞ্জনা অগ্নিহোত্রি নামে এক মহিলা। পিটিশন দাখিল করেছেন আরও ২ জন আইনজীবী– হরিশঙ্কর জৈন এবং বিষ্ণু জৈন। আবেদনে বলা হয়েছে, মামলাকারী নাবালক থাকায় সেবাইতদের মাধ্যমে নিজের সম্পত্তির দাবিতে মামলা করেছেন শ্রীকৃষ্ণ বিরাজমান। নিজের সম্পত্তি রক্ষা ও পুনরুদ্ধারের সবরকম অধিকার রয়েছে মামলাকারীর। সেবাইতদের অবর্তমানে তাঁর বন্ধুরা এই মামলা চালিয়ে যেতে পারবেন।সুন্নি ওয়াকফ বোর্ড ও শাহি ঈদগাহ মসজিদের ট্রাস্ট বোর্ডের বিরুদ্ধে এই মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিযোগ, স্থানীয় কিছু মুসলিমদের সাহায্য নিয়ে শ্রীকৃষ্ণ জন্মস্থান ট্রাস্টের অন্তর্গত কাটরা কেশব দেবের জমি কব্জা করেছে ঈদগাহ মসজিদ ট্রাস্ট।ওই জমি আসলে ভাগবান শ্রীকৃষ্ণ বিরাজমানের। ওই মামলায় শ্রীকৃষ্ণ জন্মস্থান সেবাসংঘ-এর বিরুদ্ধেও আঙুল তোলা হয়েছে। দাবি করা হয়েছে, ১৯৬৮ সালে শ্রীকৃষ্ণ জন্মস্থান সেবাসঙ্ঘ ঈদগাহ কমিটিকে জমি ছেড়ে দেয়। কিন্তু ওই জমি ছেড়ে দেওয়ার কোনও এক্তিয়ার সঙ্ঘের নেই।  ঈদগাহ যেখানে নির্মাণ করেছে তার নীচেই রয়েছে একটি কারাগার। সেখানেই জন্মছিলেন শ্রীকৃষ্ণ। মাটি খুঁড়লেই তা বেরিয়ে পড়বে।
১৯৯১ সালে ধর্মীয় স্থান সংক্রান্ত একটি বিশেষ আইন পাশ করা হয়। তাঁতে বলা হয়, কোনও মসজিদকে ভেঙে মন্দিরে বা মন্দির ভেঙে মসজিদ নির্মাণ নিষিদ্ধ। একমাত্র অযোধ্যা বিতর্কিত জমি মামলাকে এই আইনের বাইরে রাখা হয়। গত বছর অযোধ্যার মামলায় রায় দিতে গিয়ে এই আইনের উল্লেখ করেছিলেন বিচারপতিরা। বলেছিলেন, এই রায়ের উদাহরণ টেনে অন্য মামলা করা হলে তা গ্রহণ করা হবে না।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button