দেশ

১৯ সেপ্টেম্বর চিন অধিকৃত তিব্বতীয় এলাকায় চিনের আকাশপথে মহড়া, সহজে নিচ্ছেনা দিল্লি।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক : “চিন মুখে যা বলে , তার উল্টোটা করে” সংসদে রীতিমত ক্ষোভ উগরে দিয়ে জানালেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং।  প্রসঙ্গত, মস্কো বৈঠকে ভারতকে দেওয়া’কথা’ , বাস্তবের মাটিতে তা ধরে রাখতে পারেনি চীন। উল্টে ক্রমাগত লাদাখ সংঘাতকে উস্কানি দিয়ে যাচ্ছে তারা। সেই সূত্র ধরেই সংসদে রাজনাথ সিং দাবি করেন । কার্যত ভারতের প্রতিরক্ষামন্ত্রকের কথা সত্যি করে লাসায় চিন বড়সড় সেনা মহড়ার প্রস্তুতিতে। চিন অধিকৃত  লাসা সিটিতে ১৯ সেপ্টেম্বর একটি এয়ার ড্রিল হওয়ার কথা। চিন অধিকৃত তিব্বতীয় এই এলাকায় চিনের এই আকাশপথে মহড়াকে সহজে নিচ্ছেনা দিল্লি। গোটা সেপ্টেম্বর মাস জুড়ে দেশের বিভিন্ন শহরে চিন আকাশপথে মহড়া শুরু করেছে। এবার নজরে লাসা, যেখানে আকাশপথে মহড়া, কার্যত লাদাখ সংঘাতের আবহকে উস্কানি দিচ্ছে।শেষবার ২০০৯ সালে লাসাতে এমন এক সেনা মহড়া করেছিল চিন। এরপর লাদাখ সংঘাতের আবহে  লাসাকে এই আকাশপথে মহড়ার জায়গা হিসাবে বেছে নেওয়া নিয়ে রীতিমতো তৎপরতা শুরু গিয়েছে। এলাকাবাসীর উদ্দেশে বার্তা দেওয়া হয়েছে বলে খবর। জানা গিয়েছে ১৯ সেপ্টেম্বর তিনটি আলাদা সাইরেন বাজিয়ে লাসাতে শুরু হবে এই মহড়া। ১২ টা ৬ মিনিট থেকে পর পর তিনটি সাইরেন লাসা সীমান্তে বাজবে। সেখানে ৩৬ সেকেন্ড ধরে একটি করে সাইরেন ২৪ সেকেন্ড পর পর বাজবে। তারপরই চিন অস্ত্রশক্তি আস্ফালন দেখানোর পথে হাঁটবে লাদাখ আবহে। লাদাখ নিয়ে ভারতের কড়া বার্তার পরও চিন ক্রমাগত যুদ্ধের ময়দানে একরোখা হয়ে এলাকা ছাড়ছে না। গতকালই ভারত জানায় , চিন আন্তরিকভাবে লাদাখ নিয়ে সমস্যা সমাধানের চিন্তা করছে না। গালওয়ান বাদে কোনও জায়গা থেকেই চিন সেনা সরাচ্ছে না। যদিও তারা মুখে বলছে সেনা সরানোর জন্য তারা প্রস্তুত। অন্যদিকে পাকিস্তানের সঙ্গে নতুন করে যোগাযোগ বাড়িয়ে ভারতের উপর চাপ বাড়ানোর ছক কষছে চিন।পাকিস্তান ও চিন ভারতের নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর উত্তেজনা জিয়িয়ে রাখার কৌশল নিয়েছে। এই সমস্ত পর্বের পর লাসার সেনা মহড়া যে লাদাখ পরিস্থিতিতে যথেষ্ট উস্কানি দেবে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button