দেশ

ভোট মুখী বিহারে বিজেপির হাতিয়ার মৃত সুশান্ত সিং রাজপুত।

নিউজ বেঙ্গল ৩৬৫ ডেস্ক : বিহারের রাজনীতিতে অন্যতম “মুখ” তিনি। বিশেষ করে ভোট বৈতরণী পার হতে গেরুয়া শিবিরের অন্যতম ভরসা সুশান্ত সিংরাজপুত। আদপে বিহারের ভূমিপুত্র। তবে বেচে থাকতে কেউ রাজনীতির বিষয়ে এই অভিনেতাকে কোনদিন উতসাহ নিতে কেউ দেখেনি। তবে মরে যাওয়ার পর তাঁকে আকড়েই ভোটে লাভজনক ফসল তুলতে চাইছে এনডিএ জোট। তার মৃত্যু আত্মহত্যা না খুন তা খুজে দেখতে ইতিমধ্যে তদন্তে নেমেছে সিবিআই, ইডি, এনসিবি’র মত কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। ইতিমধ্যে এই ঘটনায় জড়িয়েছে মাদকচক্রের বিষয়টি। গ্রেফতার হয়েছে সুশান্তের বান্ধবী রিয়া ও তার ভাই শৌভিক সহ বেশ কয়েকজন। বলিউডের মাদকচক্রে নাম জড়িয়েছে বেশ কয়েকজন প্রথমসারির অভিনেতা-অভিনেত্রীর। আর এই ইস্যুতে সরগরম দেশের রাজনীতি। তবে ঘরের ছেলের মৃত্যুকে হাতিয়ার করে রাজনৈতিক ফায়দা তুলতে ময়দানে বিজেপি। ইতিমধ্যেই পাটনার বেশ কিছু জায়গায় সুশান্তের ছবি দিয়ে ফ্লেক্স ছাপিয়েছে কলা সংস্কৃতি মঞ্চ নামক একটি সংস্থা। যা আদপে বিজেপির একটি শাখা সংগঠন বলে পরিচিত। বিজেপির নির্বাচনী প্রতীক পদ্ম চিহ্নও ব্যবহার করা হয়েছে তাতে। নীচে লেখা-” না ভুলে হে। না ভুলনে দেঙ্গে।” তবে হঠাৎ করে ভোটে সুশান্তকে ব্যবহার করা নিয়ে একাধিক প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। তবে তারা যে ভূমিপুত্র এই প্রয়াত অভিনেতা কে হাতিয়ার করতে চান তা স্পষ্ট করে দিলেন কলা সংস্কৃতি মঞ্চের সংযজোক বরুণ কুমার। তার বক্তব্য, ” উনি একজন শিল্পী আর আমাদের সংগঠন ও শিল্পী ও সাংস্কৃতিক কর্মীদের সংগঠন। আর এটা তো ঠিক সুশান্ত সিং রাজপুতের পরিবারকে ন্যায় বিচার তো মোদীজি করে দিচ্ছেন। তাই আমাদের ঘরের ছেলে সঠিক বিচার পাবে।” তিনি আরও  জানিয়েছেন সুশান্তের ছবি দেওয়া ৩০ হাজার স্টিকার ও ৩০ হাজার মুখোশ তৈরি করা হয়েছে। এমনকি রাজপুত ভোট টানতে সুশান্তের বাবাকে প্রচারে নামানোর পরিকল্পনা করছে গেরুয়া শিবির। গোটা বিষয় নিয়ে বিজেপির রাজ নীতিকে নিয়ে কটাক্ষ করেছেন রাষ্ট্রীয় জনতা দলের মুখপাত্র মৃতুঞ্জয তেওয়ারি। তার বক্তব্য, ” আসলে জোড় করে অনৈতিকভাবে রাজ্যে ক্ষমতায এসেছে এই বিজেপি-জেডিইউ সরকার। বিহারের মানুষকে উন্নয়নের নামে যেভাবে ভাওতা দিয়েছে নীতিশ কুমারের সরকার, তাতে মানুষের ক্ষোভ পড়তে পেরেছে এই জোট। তাই এখন মরা মানুষকে নিয়ে নোংরা রাজ নীতি করছে ওরা।” তবে যাই হোক, সুশান্ত হাওয়া এই ভোটে নীতিশ কুমার-সুশীল মোদীদের কতটা সুবিধা করে দেয় তার দিকেই তাকিয়ে আছে রাজনৈতিক মহল।

Show More

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button